সারনাথ, সুজাতা ও সিদ্ধার্থের গল্প

আজ বুদ্ধপূর্ণিমা 🙏🏻

রইলো গৌতমবুদ্ধকে নিয়ে দুচার কথা আর সঙ্গে সারনাথের কয়েকটা ছবি |

DE8DA05D-D94A-4AF6-AAAF-1147E09488F4

কাশী থেকে মাত্র ১৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সারনাথ। বৌদ্ধধর্মের উন্মেষ এই সারনাথেই। সারনাথে সিদ্ধার্থ প্রথম মহাধর্মচক্র প্রবর্তন করেন।
বুদ্ধগয়ার কাছে উরুবিল্ব নামক স্থানে বৃক্ষতলে অস্মজিৎ , মহানামা, ভদ্দিয়, ওয়াপ্পা, কোন্দানয় নাম্নী পাঁচ অনুগামীর সঙ্গে কঠোর সাধনায় নিমগ্ন হন তিনি।

F3BB2DCB-1A0D-4AE5-B0E0-A0F54BFBFC47

দীর্ঘ ছয় বৎসরকাল কঠোর তপস্যার পর তাঁর শরীর অস্থিচর্মসার হয়ে পড়ে ও তার অঙ্গসঞ্চালনের ক্ষমতা কমে গিয়ে তিনি মরণাপন্ন হন।

একদিন, সমীপবৰ্ত্তী সেনানিগ্রামের এক ধনবান বণিক ধনঞ্জয় শ্রেষ্ঠীর পুণ্যবতী দুহিতা সুজাতা বহু সাধনার ফলে একটি পুত্র লাভ করে সানন্দে সুবৰ্ণ-পাত্রে পরমান্ন নিয়ে দেবতাকে ভোগ নিবেদন করতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে তরুমূলে উপবিষ্ট ক্ষীণাঙ্গ সিদ্ধার্থের ধ্যানসুন্দর মুখের অপূৰ্ব্ব জ্যোতি দেখে বিস্মিত সুজাতা মহাতপ সিদ্ধার্থকেই দেবজ্ঞানে তাঁর ভক্তিঅর্ঘ্য অর্পণ করেন।

86C898C2-148D-4C80-84F7-4A958F33F024

ইতিমধ্যে সিদ্ধার্থও উপলব্ধি করেছেন যে কঠোর কৃচ্ছসাধন নির্বাণলাভের উপায় নয় | সেকারণে তিনি কৃচ্ছসাধন এবং ভোগবিলাসের মধ্যবর্তী মার্গ বা মধ্যপন্থা অবলম্বনের মাধ্যমে ঈশ্বর লাভের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন | তাই সুজাতার দেওয়া পরমান্ন তিনি প্রসন্নচিত্তে গ্রহণ করলেন |

সিদ্ধার্থকে খাদ্য গ্রহণ করতে দেখে তার পাঁচজন সঙ্গী তার ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে ছেড়ে চলে গেলেন।
এই ঘটনার পরে তিনি একটি অশ্বত্থ গাছের তলায় ধ্যানে বসেন এবং সত্যলাভ না করে স্থানত্যাগ করবেন না বলে প্রতিজ্ঞা করেন। উনপঞ্চাশ দিন ধরে ধ্যান করার পর তিনি ‘বোধি’ প্রাপ্ত হন।তিনি মানব জীবনের দুঃখ ও তার কারণ এবং দুঃখ নিবারণের উপায় সম্বন্ধে অন্তর্দৃষ্টি লাভ করেন, যা চতুরার্য সত্য নামে খ্যাত হয়। তার মতে এই সত্য উপলব্ধি হলে তবেই নির্বাণ লাভ সম্ভব।

6AD48355-73BD-457A-83CD-BF381EA7764D

এরপর তিনি বারাণসীর কাছে ঋষিপতনের মৃগ উদ্যানে তার পাঁচ প্রাক্তন সাধন-সঙ্গীর সঙ্গে সাক্ষাত করেন ও তাদেরকে তার প্রথম শিক্ষা প্রদান করেন, যা বৌদ্ধ ঐতিহ্যে ধর্মচক্রপ্রবর্তন নামে খ্যাত। এই ভাবে তাদের নিয়ে ইতিহাসের প্রথম বৌদ্ধ সংঘ গঠিত হয় যা পরবর্তীকালে সারনাথ নামে পরিচিতি লাভ করে।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.