রান্না

কুঁদরু কৌড়া

আজকের রান্না সাবেকী হেঁসেলের হারিয়ে যাওয়া পদ কুঁদরু কৌড়া।

আগে বলি কৌড়া জিনিসটা কি , সাধারণত সহজে গলে বা ঘেঁটে যাবে না এমন যেকোনো সবজি দিয়ে এই পদটি বানানো হয় , যেমন পটল , কুঁদরি , শসা, কচি ডাবের ভিতরের অংশ , কাঁচা কুমড়ো প্রভৃতি। ফোড়ন হিসেবে শুকনো লঙ্কা , তেজপাতা , পাঁচফোড়ন ব্যবহার হয়।আর মশলা বলতে থাকে কাঁচা লঙ্কা ,নারকেল কোরা ও সর্ষে বাটা।

পূর্ববঙ্গের অনেক অঞ্চলে বিশেষতঃ সিলেটে এই পদকে ‘কোড়ু’ বলা হয়।
_________________________________________

কুঁদরু কৌড়া
〰️〰️〰️〰️〰️

⭕উপকরণ :

১) কুঁদরু – ২৫০গ্রাম

২) সর্ষের তেল – ২ টেবিল চামচ

৩) শুকনো লঙ্কা – ২ টি

৪) কাঁচা লঙ্কা – ৩/৪ টি

৫) পাঁচফোড়ন – ১চা চামচ

৬) তেজপাতা -২ টি

৭) সর্ষে – ১+১/২ চা চামচ

৮) নারকেল কোরা – ২ টেবিল চামচ

৯) নুন পরিমাণ মতো

১০) ইচ্ছানুসারে

⭕রন্ধন-প্রণালী

প্রথমে সর্ষের সঙ্গে ২টি কাঁচা লঙ্কা ও সামান্য নুন দিয়ে মিহি করে বেটে ছেঁকে নিন।

কুদরু বড়ো সাইজের হলে খোলা বাদ দিতে পারেন , তবে ছোট হলে খোসা ছাড়ানোর দরকার নেই।
ছোট ছোট করে কেটে নিন।

কড়াতে সর্ষের তেল গরম হলে কিছুটা তেল অন্য পাত্রে তুলে রাখুন।

এবার আঁচ কমিয়ে কড়াতে তেজপাতা শুকনো লঙ্কা ও পাঁচফোড়ন দিয়ে ফোড়নের গন্ধ বেরহলে তাতে কেটে রাখা কুঁদরু দিয়ে সামান্য নুন দিয়ে আঁচ কমিয়ে ঢাকা দিয়ে খুব ভালো করে ভাজুন।

ভাজা প্রায় হয়ে এলে ওতে নারকেল কোরা আর কাঁচা লঙ্কা দিয়ে সামান্য ভাজুন।

এর পর সর্ষে বাটার মিশ্রণটা দিয়ে ৫/৭ মিনিট ঢাকা দিয়ে রান্না করুন।

একটু শুকনো শুকনো হয়ে এলে নামিয়ে নিয়ে ওপরে আগে থেকে গরম করে রাখা সর্ষের তেলটা ছড়িয়ে নিয়ে গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করুন কুঁদরু বা কুঁদরি কৌড়া।

চর্ব্য, চোষ্য, লেহ্য পেয় করে আমিষ খেতে যারা অভ্যস্ত, সেই বাঙালীর পাতে লোভনীয় নিরামিষ পদ এনে দিয়েছিলেন যে সমস্ত রন্ধনপটিয়সীরা তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন রেণুকা দেবী চৌধুরানী , এ রান্না তাঁরই।

 

কুঁদরু বা কুঁদরি কৌড়া
কুঁদরু বা কুঁদরি কৌড়া