রান্না

হারা-ভরা পারাটা’ ( HARA-BHARA PARANTTHA )

অনেক বাচ্চার মায়েদের প্রায়শই
বলতে শোনা যায় – “আমার বাচ্চা তো কিছুই খায়না”; দিনের মধ্যে তাদের অনেকটা সময় কেটে যায় বাচ্চার পেছনে খাবার থালা হাতে ছুটতে গিয়ে।
সেইসব মায়েদের জন্য আজকে এনেছি এমন একটা রেসিপি যা মুখরোচোক তো বটেই আবার তার মধ্যে তিনটি জরুরি খাদ্যোপাদান যথা- কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট ছাড়াও প্রয়োজনীয় ভিটামিন মিনারেলস ও আছে।

‘হারা-ভরা পারাটা’ ( HARA-BHARA PARANTTHA ) নামের এই সবুজ রঙের পরোটার রূপের রসায়ন এবং স্বাদের ম্যাজিক আপনার বাচ্চাকে ‘picky eater’ থেকে খাদোৎসাহী করে তুলবে নিমেষে।

20170504160525-1

হারা-ভরা পরোটায় ( HARA-BHARA PARANTTHA ) যা যা লাগবে :
〰〰〰〰〰〰〰〰〰〰〰〰

✔আটা- দেড় কাপ (multigrain atta – main source of carbohydrates )

✔ঘরে কাটানো ছানা – ১|২ কাপ (main source of protein )

✔তেল- ২ টেবিল চামচ ( main source of fat)

✔পেঁয়াজ – ১ টা

✔পালং শাক কুচি- হাফ কাপ

✔মেথিপাতাকুচি – হাফ কাপ অথবা

✔কাসুরিমেথি পাতার গুঁড়ো – ২ চাচামচ

✔জোয়ান – ১ চাচামচ

✔নুন – স্বাদানুসার

যেভাবে তৈরি করতে হবে:
〰〰〰〰〰〰〰〰〰

✔প্রথমে পালং শাক কুচি, পেঁয়াজকুচি এবং মেথিপাতাকুচি সব এক সাথে ভালো করে বেটে নিতে হবে।

✔ তারপর আটার সাথে নুন ও সামান্য তেল দিয়ে ময়ান দিতে হবে।

✔এবার কাসুরি-মেথি ও জোয়ান মেশাতে হবে।

✔এরপর ছানা ও শাক এর মিশনের সঙ্গে ময়ান দেয়া আটা মাখতে হবে, জল দেবার দরকার মনে হলে ছানার জল ব্যবহার করবেন।

✔আটা মাখা হয়ে গেলে খানিকক্ষণ রেখে দিতে হবে।

✔এবার গোল গোল কেটে পরোটা বেলে নিতে হবে। প্যানে তেল দিয়ে গরম হয়ে গেলে পরোটা ভাজতে হবে।

পরোটা ভাজা হয়ে গেলে, হিং ফোড়ন দিয়ে বানানো হালকা আলুর তরকারি বা আনারদানা রায়তার সঙ্গে পরিবেশন করতে পারেন।

🔴 যদি মনে করেন তেল এ না ভেজে রুটির মতো সেঁকে নেবেন, তাহলে শাকের মিশ্রণটিকে আগে একটু সেদ্ধ করে নিয়ে ঠাণ্ডা হলে তাই দিয়ে আটা মাখবেন 🔴